আজ ১৯শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩রা আগস্ট, ২০২০ ইং

পটিয়ায় প্রবাসীকে চুরিকাঘাতে হত্যার ঘটনায় মামলা: স্ত্রী ও শাশুড়ি জেল হাজতে

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রামের পটিয়ায় প্রবাসীকে চুরিকাঘাতে হত্যার ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। নিহতের বড়ভাই মোঃ ওমর ফারুক বাদি হয়ে চারজনকে আসামি করে শনিবার রাতে পটিয়া থানায় হত্যা মামলাটি দায়ের করেন। এঘটনায়  মামলার আসামী নিহতের  স্ত্রী আরিফা আকতার ও শাশুড়ী মনোয়ারা বেগমকে পুলিশ আটক করেছে। অপর দুই আসামি বোন শাহিন আকতার ও তার স্বামী মোঃ হোসেন পলাতক রয়েছে। আটককৃত দুই আসামীকে আজ রবিবার দুপুরে হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।                                    উপজেলার কুসুমপুরা ইউনিয়নের দক্ষিণ হরিনখাইন এলাকায়  শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে গিয়ে সৌদি ফেরত প্রবাসি  সাইফুল ইসলাম সুমন (৩৫) নামের এক যুবককে  ছুরিকাঘাতে নিহত হয়। গত শুক্রবার গভীর রাতে এ ঘটনা ঘটলেও শনিবার সকালে   চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অব¯’ায় সুমনের মৃত্যু হয়।জানা যায়,  পটিয়ার কুসুমপুরা ইউনিয়নের পূর্ব  বিনিনীহারা এলাকার আবুল কাসেমের ছেলে প্রবাসী সুমন একই ইউনিয়নের দক্ষিণ   হরিনখাইন এলাকার ফরিদুল আলমের মেয়ে আরিফা  আকতারের সাথে সামাজিক ভাবে  চার বছর আগে বিয়ে হয়।  তাদের তিন বছরের একটা মেয়েও রয়েছে। বিয়ের পর সুমন সৌদি আরবে   চলে গেলে পরিবারের সঙ্গে তার স্ত্রীর বনিবনা না হওয়ায় নিজের বাবার বাড়িতে থাকতে শুরু করেন।ছয় মাস আগে  প্রবাস থেকে ফিরে আসেন তিনি । এর মধ্যে বেশ কয়েকবার শ্বশুর বাড়িতে আসা যাওয়া করে সুমন।  গত শুক্রবার রাতে আবারও শ্বশুরবাড়ি গেলে স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে তার স্ত্রীসহ শাশুর বাড়ির লোকজনের  ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হন সুমন। এসময় শাশুরবাড়ির লোকজন স্হানীয় হাতুড়ে চিকিৎসক জাহাঙ্গীর ও আলমগীরকে বাড়িতে ডেকে নিয়ে এসে সুমনের প্রাথমিক চিকিৎসা করান। এ অব¯’ায় তাকে চমেক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই  চিকিৎসাধীন অবস্হায় শনিবার দুপুরে  তার মৃত্যু হয়। এঘটনায় নিহতের বড় ভাই ফারুক  জানান, আমার ভাই বিদেশ হতে সব টাকা পয়সা তার স্ত্রীর এক্যাউন্টে পাঠাতো। ছয় মাস আগে বিদেশ হতে দেশে এসে করোনা পরি¯ি’তির কারনে আর বিদেশে ফিরে যেতে পারেননি। তাকে শশুর বাড়িতে পরিকল্পিত ভাবে ডেকে নিয়ে টাকার লোভে শশুরবাড়ির লোকজন হত্যা করেছে। এখন ঘটনাটিকে ভিন্নখাতে প্রভাহিত করার জন্য তারা বলছেন সুমন নিজে নিজে চুরিকাঘাতে আত্নহত্যা করেছে। অপরদিকে নিহত সাইফুল ইসলাম সুমনের মরদেহ চমেক হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় তার গ্রামের বাড়িতে জানাজার পর দাফন করা হয়েছে। এনিয়ে এলাকায় ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে।                   

এদিকে এঘটনায় গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় নিহতের স্ত্রী আরিফা আকতার (২৫) ও শাশুড়ী মনোয়ারা বেগম (৪০) কে পটিয়া থানা পুলিশ প্রাথমিক জিজ্ঞেসাবাদের জন্য আটককরে থানা হাজতে নিয়ে আসা হয়েছিল।   পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞেসাবাদে তারা এ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত বলে স্বীকার করেছে।                                পটিয়া থানার ওসি  বোরহান উদ্দিন  বলেন, শুক্রবার রাতে সুমন তার শ্বশুরবাড়িতে ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হন। পরে আহত অবস্হায় চমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অব¯’ায় শনিবারে  তার মৃত্যু হলে বিষয়টি আমরা জানতে পারি। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে সুমনকে হত্যার অভিযোগে তার বড় ভাই ফারুক বাদি হয়ে একটা হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। এঘটনায় আটক মা মেয়ে দুইজনকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রির্পোট আসার পর আরো কিছু জানা যাবে বলে জানান তিনি। বাকি দুই আসামীকে ধরার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পুলিশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category
Shares