করোনা: স্কুল নয় কোয়ারেন্টাইন হবে চট্টগ্রামের ‌‘আবাসিক হোটেল’

চট্টগ্রাম ব্যুরো:
করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে সন্দেহজনক এমন রোগীদের বিশেষ ব্যবস্থায় কোয়ারেন্টাইনে রাখার জন্য ইতিপূর্বে দু’টি স্কুলকে প্রস্তুত করার কথা জানিয়েছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন। তবে সেই সিদ্ধান্ত পাল্টিয়েছে প্রশাসন। এবার তারা কোয়ারেন্টাইনের জন্য স্কুলের পরিবর্তে নগরের দু’টি আবাসিক হোটেলকে বেছে নিয়েছে। সোমবার (১৬ মার্চ) বিকেল ৪টায় চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয়ে ‌আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়টি জানান জেলা সিভিল সার্জন শেখ ফজলে রাব্বী মিয়া।

তিনি বলেন, ‘এর আগে কোয়ারেন্টাইনের জন্য দু’টি স্কুলকে প্রস্তুত করার কথা বলা হয়েছিল। স্কুল দু’টি হলো- দক্ষিণ কাট্টলীর পি এইচ আমিন একাডেমি এবং চান্দগাঁওয়ের সিডিএ পাবলিক গার্লস স্কুল। কিন্তু বিদ্যালয়ে ভোটকেন্দ্রের সম্ভাবনা থাকায় এ সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করা হয়েছে। এখন আমরা নগরের দু’টি হোটেলকে কোয়ারেন্টাইনের জন্য ব্যবহারের চিন্তা ভাবনা করছি। হোটেল দু’টি হলো- স্টেশন রোডের মোটেল সৈকত ও চকবাজার এলাকার স্টার পার্ক।’
এছাড়া চট্টগ্রামের বিভিন্ন হাসপাতালে মোট ৩৫০টি বেড করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের জন্য তৈরি আছে জানিয়ে সিভিল সার্জন বলেন, ‘ফৌজদারহাটের বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসে (বিআইটিআইডি) ৫০টি, চমেকে ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের ৩০টি, ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালে পাহাড়ের উপরে আলাদা ব্লকে ১০০টি, রেলওয়ে হাসপাতালে ৩৭টি বেড প্রস্তুত আছে।’
তিনি বলেন, ‘রেলওয়ে হাসপাতালের ৩৭ শয্যাকে ৫০-এ উন্নীত করার সম্ভাবনার রয়েছে। এছাড়া রাউজানে ১০টি বেড, ফটিকছড়িতে ১০টি, আনোয়ারায় ১০টি, সীতাকুণ্ডে ১০টিসহ বাকি উপজেলাগুলোতে ৫টি কেরে বেড প্রস্তুত রাখা হয়েছে। নগরীতে সিটি করপোরেশন পরিচালিত হাসপাতালগুলোতেও আলাদা ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত চট্টগ্রামে কোনো করোনা আক্রান্ত রোগী নেই, যদি একজনও ধরা পড়ে তবে এ সব ব্যবস্থা আরও স্ট্রং হয়ে যাবে।’
করোনাভাইরাস সংক্রমণের ক্ষেত্রে চট্টগ্রাম জেলা এই মুহূর্তে সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে আছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘চট্টগ্রাম জেলা এই মুহূর্তে সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে। কারণ আমাদের দু’টি বন্দর, একটি বিমানবন্দর ও অপরটি সমুদ্র বন্দর। দু’টি বন্দর দিয়েই সংক্রমণের সম্ভাবনা রয়েছে। এন্ট্রি পয়েন্টেই যদি সংক্রমণকারীকে ঠেকিয়ে দেয়া না যায়, তাহলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখা যাবে না।’
বশির আলমামুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» আজ পবিত্র শবে বরাত

» রাষ্ট্রপতির কাছে মাজেদের প্রাণভিক্ষার আবেদন

» কুড়িগ্রামে Vision 22 এর অর্থায়নে ত্রাণ বিতরণ

» শাহজাদপুরে মাটির ট্রাক খাদে পড়ে ১ শ্রমিক নিহত

» কক্সবাজার জেলা লকডাউন ঘোষণা

» ঈদগাহ রিপোর্টার্স সোসাইটির উদ্যোগে খতমে কোরআন ও দোয়া মাহফিল

» চট্টগ্রামে করোনার নমুনা পরীক্ষায় ৮৮ জনের নেগেটিভ

» করোনায় দেশে আরো ৩ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৫৪

» চকরিয়ায় করোনা’র চেয়ে আতঙ্ক গুজব ভাইরাস!

» দঃ সাহিত্যিকাপল্লী সমাজ কমিটির উদ্যোগে হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

উপদেষ্টা:নজরুল ইসলাম রানা
সম্পাদক : মোহাম্মাদ মোস্তফা কামাল
নির্বাহী সম্পাদক :মো:রফিক উদ্দিন লিটন
বার্তা সম্পাদক :নিজাম উদ্দিন

অফিস: ১৫০ নাহার ম্যানশন, ৬ষ্ঠ তলা,মতিঝিল বানিজ্যিক এলাকা,মতিঝিল ঢাকা।
মোবাইল :০১৫১৬১৭৭৩৮৫
কক্সবাজার অফিস :
সিফা ম্যানশন,বাস ষ্টেশন ঈদগাঁও, কক্সবাজার সদর।
মেইল:bddainik@gmail.com
মোবাইল :০১৮৫১২০০৭৯০/০১৬১০১১৭৯৭২

Desing & Developed BY ZihadIT.Com
,

করোনা: স্কুল নয় কোয়ারেন্টাইন হবে চট্টগ্রামের ‌‘আবাসিক হোটেল’

চট্টগ্রাম ব্যুরো:
করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে সন্দেহজনক এমন রোগীদের বিশেষ ব্যবস্থায় কোয়ারেন্টাইনে রাখার জন্য ইতিপূর্বে দু’টি স্কুলকে প্রস্তুত করার কথা জানিয়েছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন। তবে সেই সিদ্ধান্ত পাল্টিয়েছে প্রশাসন। এবার তারা কোয়ারেন্টাইনের জন্য স্কুলের পরিবর্তে নগরের দু’টি আবাসিক হোটেলকে বেছে নিয়েছে। সোমবার (১৬ মার্চ) বিকেল ৪টায় চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয়ে ‌আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়টি জানান জেলা সিভিল সার্জন শেখ ফজলে রাব্বী মিয়া।

তিনি বলেন, ‘এর আগে কোয়ারেন্টাইনের জন্য দু’টি স্কুলকে প্রস্তুত করার কথা বলা হয়েছিল। স্কুল দু’টি হলো- দক্ষিণ কাট্টলীর পি এইচ আমিন একাডেমি এবং চান্দগাঁওয়ের সিডিএ পাবলিক গার্লস স্কুল। কিন্তু বিদ্যালয়ে ভোটকেন্দ্রের সম্ভাবনা থাকায় এ সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করা হয়েছে। এখন আমরা নগরের দু’টি হোটেলকে কোয়ারেন্টাইনের জন্য ব্যবহারের চিন্তা ভাবনা করছি। হোটেল দু’টি হলো- স্টেশন রোডের মোটেল সৈকত ও চকবাজার এলাকার স্টার পার্ক।’
এছাড়া চট্টগ্রামের বিভিন্ন হাসপাতালে মোট ৩৫০টি বেড করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের জন্য তৈরি আছে জানিয়ে সিভিল সার্জন বলেন, ‘ফৌজদারহাটের বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসে (বিআইটিআইডি) ৫০টি, চমেকে ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের ৩০টি, ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালে পাহাড়ের উপরে আলাদা ব্লকে ১০০টি, রেলওয়ে হাসপাতালে ৩৭টি বেড প্রস্তুত আছে।’
তিনি বলেন, ‘রেলওয়ে হাসপাতালের ৩৭ শয্যাকে ৫০-এ উন্নীত করার সম্ভাবনার রয়েছে। এছাড়া রাউজানে ১০টি বেড, ফটিকছড়িতে ১০টি, আনোয়ারায় ১০টি, সীতাকুণ্ডে ১০টিসহ বাকি উপজেলাগুলোতে ৫টি কেরে বেড প্রস্তুত রাখা হয়েছে। নগরীতে সিটি করপোরেশন পরিচালিত হাসপাতালগুলোতেও আলাদা ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত চট্টগ্রামে কোনো করোনা আক্রান্ত রোগী নেই, যদি একজনও ধরা পড়ে তবে এ সব ব্যবস্থা আরও স্ট্রং হয়ে যাবে।’
করোনাভাইরাস সংক্রমণের ক্ষেত্রে চট্টগ্রাম জেলা এই মুহূর্তে সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে আছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘চট্টগ্রাম জেলা এই মুহূর্তে সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে। কারণ আমাদের দু’টি বন্দর, একটি বিমানবন্দর ও অপরটি সমুদ্র বন্দর। দু’টি বন্দর দিয়েই সংক্রমণের সম্ভাবনা রয়েছে। এন্ট্রি পয়েন্টেই যদি সংক্রমণকারীকে ঠেকিয়ে দেয়া না যায়, তাহলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখা যাবে না।’
বশির আলমামুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



উপদেষ্টা:নজরুল ইসলাম রানা
সম্পাদক : মোহাম্মাদ মোস্তফা কামাল
নির্বাহী সম্পাদক :মো:রফিক উদ্দিন লিটন
বার্তা সম্পাদক :নিজাম উদ্দিন

অফিস: ১৫০ নাহার ম্যানশন, ৬ষ্ঠ তলা,মতিঝিল বানিজ্যিক এলাকা,মতিঝিল ঢাকা।
মোবাইল :০১৫১৬১৭৭৩৮৫
কক্সবাজার অফিস :
সিফা ম্যানশন,বাস ষ্টেশন ঈদগাঁও, কক্সবাজার সদর।
মেইল:bddainik@gmail.com
মোবাইল :০১৮৫১২০০৭৯০/০১৬১০১১৭৯৭২

Design & Developed BY ZahidITLimited