আজ ২০শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা জুলাই, ২০২০ ইং

‘থ্যাঙ্ক ইউ ক্যাপ্টেন’

স্পোর্টস ডেস্ক:

শুরুটা হওয়ার পর সবাইকে একদিন না একদিন থামতেই হয়। বিদায়ের গান প্রত্যেকের জীবনে বেজে ওঠে। সমাপ্তিটা বিষাদের সুর হয়ে বাজলেও তা শুনতে হয় সবাইকেই। তেমনিভাবেই এবার থেমে যেতে হলো অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাকেও। শেষ হলো ‘অধিনায়ক মাশরাফি’ নামের এক অনবদ্য উপাখ্যান।

মাশরাফি নামক মহাকাব্যটির সবচেয়ে বড় অধ্যায় হয়ে থাকবে মাশরাফির নেতৃত্বগুণের, বাংলাদেশের সবচেয়ে সফল অধিনায়কের কথা। যেখানে ৮৮ ম্যাচ নেতৃত্ব দিয়ে তার জয়ের সংখ্যা ৫০টি। কী সৌভাগ্য! এখানেই যে তার শেষ নয়।

ইতি টানার সময়েও মাশরাফি স্পর্শ করে গেলেন এক অনন্য মাইলফলক। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের শেষ ম্যাচ জিতে নিজের অধিনায়কত্বের ম্যাচ জয়ে পূরণ করলেন অর্ধশতকও। যাতে মাশরাফির সাফল্যের দাঁড়িয়েছে শতকরা ৫৮ শতাংশে। সেখানে সফল হওয়া অপর দুই অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের হার ৪৬ ও হাবিবুল বাশার সুমনের হার ৪২ শতাংশ।

এক মাশরাফির নেতৃত্বেই ২০১৫ সালে প্রথমবার বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে নাম লেখায় টাইগাররা। শুধু তাই নয়, বাংলাদেশের একমাত্র অধিনায়ক হিসেবে দুটি ওয়ানডে বিশ্বকাপে (২০১৫, ২০১৯) দেশকে নেতৃত্ব প্রদান করেন মাশরাফিই।

এখানেও শেষ নয়, মাশরাফির নেতৃত্বেই ২০১৭ সালে আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সেমিফাইনালে খেলার গৌরব অর্জন করে লাল সবুজের প্রতিনিধিরা। এছাড়াও এই মাশরাফির নেতৃত্বেই বাংলাদেশের অর্জনের ভাণ্ডারে রয়েছে টানা দুবার এশিয়া কাপের রানার্সআপ হওয়ার কৃতিত্ব।

এমনকি, আয়ারল্যন্ডের মাটিতে তিন জাতি টুর্নামেন্টের ফাইনাল জিতে প্রথমবার কোনও আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টের শিরোপার স্বাদ পান মাশরাফিরা। অধিনায়ক হিসেবে তার ঝুলিতে রয়েছে শতাধিক ওয়ানডে উইকেটও।

শুধু সংখ্যাতেই মাশরাফির নেতৃত্বগুণ বোঝানো যাবে না। বুঝতে হবে মাঠের ভেতর তার লড়াইটা দেখে, জয়ের আকাশ ছোঁয়ার স্বপ্নটা দেখে। যে স্বপ্নটা কখনও বাইশ গজ ছাপিয়ে জীবনের চোখে চোখ রেখেও লড়তে শেখায়।

এদিকে, দেশ সেরা এ অধিনায়ককে বিদায়ী শুভেচ্ছা জানাতে সিলেট স্টেডিয়ামে ছুটে এসেছিলেন প্রায় ১৫ হাজার ক্রিকেট সমর্থক। ম্যাশের সতীর্থদেরও তাকে বিদায়ী শুভেচ্ছা জানাতে কমতি ছিল না। অধিনায়ক মাঠ ছেড়েছেন তামিমের কাঁধে চড়ে, রাজসিক বিদায় যাকে বলে। এ ছাড়া বাংলাদেশ দলের সব ক্রিকেটারের জার্সির পেছনে লেখা মাশরাফি, জার্সি নম্বর ছিল ২। জার্সির সামনে লেখা ছিল; “থ্যাঙ্ক ইউ ক্যাপ্টেন।”

তাইতো শেষ বেলায় এটা বলাই যায় যে, শুধু ক্রিকেটার না এদেশের সকল ক্রিকেটপ্রেমীর কাছ থেকেও মাশরাফি এক সমুদ্র ‘ধন্যবাদ’ প্রাপ্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category
Shares