আজ ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে মে, ২০২০ ইং

খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা ও উত্তরাধিকারীদের সেনা প্রধানের সংবর্ধনা, যেকোন পরিস্থিতি মোকাবেলার অঙ্গীকার

মোঃ নাজমুল হুদা: সশস্ত্র বাহিনী দিবস- ২০১৮ উপলক্ষে খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা সেনাসদস্য এবং ২০১৭-১৮ সালে শান্তিকালীন পদকপ্রাপ্ত সেনাসদস্যগণকে স্বাধীনতাযুদ্ধে অবদানের জন্য সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে।

 

২২ নভেম্বর সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ, বিজিবিএম, পিবিজিএম, বিজিবিএমএস, পিএসসি, জি’র পক্ষ থেকে এ সংবর্ধনা ও পদক প্রদান করা হয়।

 

এ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সেনাবাহিনীর ৩ জন বীরশ্রেষ্ঠের নিকটাত্মীয়, ৩ জন বীর উত্তম, ১৪ জন বীর বিক্রম ও ২৭ জন বীরপ্রতীক সেনাসদস্যের (সর্বমোট ৪৭ জন) সংবর্ধনা প্রদান করা হয়।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে প্রথমবারের মতো ২০১৭-২০১৮ সালে শান্তিকালীন সময়ে বিভিন্ন প্রশংসনীয় ও বীরত্বপূর্ণ কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ ৯ জন ‘অসামান্য সেবা পদক’এবং ১৯ জন ‘বিশিষ্ট সেবা পদক’(বিএসপি) প্রাপ্ত সেনাসদস্যকে সেনাবাহিনী প্রধান পদকে ভূষিত করা হয়।

 

অনুষ্ঠানের শুরুতে খেতাবপ্রাপ্ত সেনাসদস্যদের মহান মুক্তিযুদ্ধকালীন বীরত্বগাঁথা এবং শান্তিকালীন পদক প্রাপ্তদের প্রশংসনীয় কর্মকাণ্ডের সারসংক্ষেপ তুলে ধরা হয়।

 

অনুষ্ঠানে সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ তার বক্তব্যে বলেন, দেশের প্রয়োজনে সেনাবাহিনী যেকোন পরিস্থিতিতে কাজ করতে প্রস্তুত। সেনাবাহিনী আজ তার নিজস্ব প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই, বরং বিভিন্ন আর্থসামাজিক ও জাতিগঠনমূলক কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করে প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে সরকার ও প্রশাসনকে সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে। দেশের যেকোন প্রয়োজনে সাড়া দিয়ে জনগণের সঙ্গে একাত্ম হয়ে দেশের উন্নয়নে কাজ করতে সেনাবাহিনী সদাপ্রস্তুত। দেশের অখণ্ডতা, স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার আদর্শিক প্রেরণায় সেনাবাহিনীর সব সদস্য তাদের অর্পিত দায়িত্ব নিরলসভাবে পালন করে চলেছে।

 

ঢাকা সেনানিবাসস্থ ‘আর্মি মাল্টিপারপাস কমপ্লেক্সে’সংবর্ধনা ও পদক প্রদানে উপস্থিত ছিলেন ঢাকায় কর্মরত ও অবসরপ্রাপ্ত ঊর্ধ্বতন সেনাকর্মকর্তারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category
Shares