আজ ২৪শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৮ই জুলাই, ২০২০ ইং

“একটি দুর্ঘটনা সারা জীবনের জন্য অনেক গুলো জীবনের কান্না”

যে কোন ধরনের চালক ভাইদের প্রতি আমার অনুরোধ, আপনারা অতি সাবধানে মনোযোগী হয়ে গাড়ি চালাবেন। কারণ আপনার অসাবধানতায় ঘটে যেতে পারে অনাকাংখিত দুর্ঘটনা। আল্লাহ না করুন, আপনি যদি দুর্ঘটনায় মারা যান তাহলে আপনার পিছনে অনেক গুলো জীবন জরিয়ে আছে, যারা আপনার অনুপুস্থিতিতে সারা জীবন কান্না-কাটি করবে, অনেক কষ্ট পাবে। যা শোধরাবার নয়। আর যদি বেচে থাকেন পঙ্গু হয়ে, তাহলে তো আরো কষ্ট বেড়ে যাবে। সংসারের ভরন-পোষন ও আপনার চিকিৎসার ব্যয়। আর আপনি যদি হন সংসারের একমাত্র উপার্জিত ব্যক্তি, তাহলে কি করে চলবে এই অসুস্থ সংসারটি। সংসারের নানা খরচ, সু-চিকিৎসা, বাচ্চার পড়াশুনার ব্যয়ভার ইত্যাদি। সুতরাং সাবধানতা, সতর্কতা, মনোযোগী হন তাহলেই কেবল বাচবেন দুর্ঘটনা থেকে। এবারে আমার একটি সৎ পরামর্শ যা আপনী ও আপনার পরিবারের জন্য অত্যন্ত কল্যানময় ও মঙ্গলময় হবে। আপনার যে কোন দুর্ঘটনার আগে ফারইষ্ট ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্সে কোম্পানীতে একটি বীমা পলিসি গ্রহন করুন। আল্লাহ না করুন, যদি আপনার মৃত্যু হয়, তাহলে আপনার স্ত্রী হবে বিধবা, সন্তানরা হবে এতিম। আপনি বীমা করায় ফারইষ্ট আপনাকে আপনার পরিবারের নিকট ফেরত দিতে পারবে না সত্য, কিন্তু আপনার মৃত্যুতে বিধবা স্ত্রী ও এতিম সন্তানদের মাথায় হাত বুলিয়ে তাদের দুর্দিনে ফারইষ্টই একমাত্র বন্ধু হয়ে মোটা টাকার চেক তাদের হাতে তুলে দিয়ে স্বচ্ছলতা ফিরিয়ে দিতে পারবে ইনশাআল্লাহ। অনেক প্রমান আছে, যেমন- আব্দুল্লাহ, মাত্র ৭২,০০০ টাকা জমা করে মারা যাওয়ায় তার নমীনী/স্ত্রী ৩,২৫,৯২০ টাকার চেক পায়। স্বামীর শোক ভুলতে না পারলেও সন্তানের ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তিত নন বিধবা পারভীন আক্তার। আর যদি পঙ্গু হন, তাহলে অঙ্গহানী চিকিৎসা ভাতা পাবেন। কিস্তি মওকুপ হয়ে যাবে। মেয়াদ শেষে মেয়াদোত্তর বীমা দাবীর পুর্ন টাকা পাওয়া যাবে ইনশাআল্লাহ। আর দেরী না করে দ্রুত ফারইষ্টে একটি পলিসি করুন। সন্তানদের উজ্জল ভবিষ্যত জীবন গঠনের ক্ষেত্র তৈরীতে নিশ্চিত হউন। বীমার টাকার ১০০% নিশ্চয়তা দিচ্ছি আমি মোঃ মমিনুল ইসলাম (মমিন), ইনচার্জ, কচাকাটা মডেল সাংগঠনিক অফিস, মমিনগঞ্জ বাজার, কচাকাটা, কুড়িগ্রাম। যোগাযোগ- ০১৭৪০৫৫৮১৯১।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category
Shares