আজ ২০শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা আগস্ট, ২০২০ ইং

মোনাজাত ভুল ও শুদ্ধ

বিডি ডেস্কঃ

১. আল্লাহ পাকের হামদ (প্রশংসা) ও রাসুল (সঃ) এর প্রতি দুরুদ দ্বারা মোনাজাত শুরু করা । এবং হামদ , দুরুদ ও আমিন দারা মোনাজাত শেষ করা (মোনাজাতের মাঝে নিজের চাওয়া পাওয়া প্রকাশ করা) । অথচ এই নিয়ম বাদ দিয়ে ”আল্লাহুম্মাআমিন” বলে মোনাজাত শুরু করে এবং ”বাহক্বে লা-ইলাহা ইল্লালাহু” বলে মোনাজান শেষ করে । এই রুপ সব সময় বলা বা করতে থাকা হচ্ছে বিদআদ । তাহলে সুন্নত তরিকাটা হলো ”আলহামদুল্লিাহ” বলে মোনাজাত শুরু করা । এর সাথে দুরুদ সংযোগ দেওয়া এবং নিজের চাওয়া পাওয়া শেষে সুবাহানা রাব্বি………… অথবা আমিনের মাধ্যমে মোনাজাত শেষ করা ।

২. মোনাজাতের সময় অনেকেই হাতের তালু চেহারা মুখি করে রাখে অথবা দুই হাত মুষ্ঠি করে রাখে, এটা ভুল অথচ নিয়ম হলো দুই হাতের তালু আসমানের দিকে রাখা ।

৩. মোনাজাতের সময় অনেকে উভয় হাত অনেক বেশি ফাকা রাখে অথবা একেবারে মিলিয়ে রাখে, অঅবার কেউ কেউ দড়ি পাকায় দড়ি পাকানোর মত করে অথবা উভয় হাতের আঙ্গুল গুলি ফুটায় । এই সব ই হলো ভুল অথচ নিয়ম হলো উভয় হাতের মাঝখানে দুই এক আঙ্গুল পরিমান ফাকা রাখা ।

৪. মোনাজাতের সময় অনেককেই দেখা যায় কাঁধ থেকে উপরে উঠিয়ে রাখে এবং কেউ কেউ দুই হাত বুকের থেকে নিচে রাখে । অথবা উরুর সাথে লাগিয়ে রাখে, এসব ভুল । অথচ নিয়ম হলো উভয় হাত বুক বরাবর রাখা ।

৫. অনেকেই ফরজ নামাজের পর দুয়া, জিকির না করে সুন্নত বা নফল নামাজ পড়ার জন্য দাড়িয়ে যায় । এটা সুন্নতের খেলাপ । ফরজ নামাজের পর কিছু সময় ( অনেক সময় না) দোয়া-দুরুদ, জিকির-আজকার. তাসবীহ-তাহলীল ইত্যাদি পাঠ করা ।

৬. অনেকেকেই দেখা যায় নামাজ শেষের সাথে সাথেই উচ্চস্বরে মোনাজাত করে । এতে মাঝবুকের (রাকাত ছুতে যাওয়া ব্যাক্তি) অবশিষ্ঠ নামাজের মদ্ধে বিঘ্ন শৃষ্টি হয় এটা না জায়েজ ।  অথচ মনে মনে মোনাজাত করা মুস্তাহাব ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category
Shares